ফেসবুক বুস্টিং কি । বিস্তারিত আলোচনা

ফেসবুক বুস্টিং কি, বিস্তারিত আলোচনা

বর্তমানে ফেসবুক বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি স্যোসাল মিডিয়া যা বিশ্বের প্রায় এক তৃতীয়াংশ ব্যবহার করছে।

ফেসবুক থেকে পাওয়া তথ্য মতে, বাংলাদেশের ৩ কোটিরও বেশি মানুষের ফেসবুক একাউন্ট রয়েছে। তার মানে, বাংলাদেশে প্রতি ৬ জনের একজন ফেসবুক ব্যবহার করছে।

এদের মধ্যে ১৮-৩৫ বছর বয়সীদের সংখ্যা ৭০ ভাগের মত এবং বাকীদের সংখ্যা ৩০ ভাগ। ফেসবুক বুস্টিং এর মাধ্যমে আপনি এই ৩ কোটি মানুষের কাছে আপনার ফেসবুক পেজের বার্তা পৌঁছাতে পারবেন।

ফেসবুক বুস্টিং

ফেসবুক বুস্টিং বা বুস্ট হল এমন এক ধরনের কার্যকরী বিজ্ঞাপন, যেটি ফেসবুক পেজ থেকে কোনো পোস্ট, ছবি এবং ভিডিও আকারে কোনো নির্দিষ্ট অঞ্চলের মানুষদেরকে দেখানো হয়।

অর্থাৎ একটি ফেসবুক পেজে যারা যারা লাইক দেইনি, তাদের কাছে পেজের কোনো পোস্ট পৌছানোর মাধ্যম হল ফেসবুক বুস্টিং।

উদাহরণসরূপ বলা যায়,

ধরুন, আপনার একটি ফেসবুক পেজ আছে। সেখানে আপনি শার্ট বিক্রি করবেন। বিভিন্ন শার্টের কালেকশনের ছবি ও দামসহ আপনার পেজে একটি পোস্ট করলেন।

এখন এই পোস্টটি বহু মানুষকে দেখাবেন যাতে তারা শার্ট সম্পর্কে জানতে পারে এবং কেনার আগ্রহ প্রকাশ করে। এই বহু মানুষকে শার্টের ছবি দেখানোটাই হল ফেসবুক বুস্টিং।

যখন লোকজন তাদের ফেসবুক ফিডে শার্টের বিজ্ঞাপনটি দেখবে তখন তারা কেনার জন্য আগ্রহী হতে পারে।

ফেসবুক বুস্টিং এর গুরুত্ব

ফেসবুক বুস্টিং এর গুরুত্ব দিন দিন বেড়েই চলছে। যারা ফেসবুকে পেজ খুলে অনলাইনে ব্যবসা করেন তাদের জন্য বুস্টিং খুব প্রয়োজন। কারন বুস্টিং এর ফলে অনলাইন ব্যবসা সম্পর্কে মানুষজন জানতে পারে। ফলে পেজের পণ্য বিক্রি হওয়ার সুযোগও বাড়তে থাকে।

বর্তমানে অনেক অনলাইন ব্যবসায়ী নিয়মিত ফেসবুক বুস্টিং করে তাদের ব্যবসা পরিচালনা করছে এবং নতুন নতুন কাস্টমার পেয়ে লাভবান হচ্ছে। বুস্টিং এর পর বিভিন্ন দিক যেমন- কত জন পোস্টটি দেখেছে, কত জন পোস্টটির উপর ক্লিক করেছে, এবং কত জন মেসেজ দিয়েছে, এসব বিষয় নিখুঁতভাবে জানা যায়।

তাই বর্তমানে পত্রিকা, টিভি, বিলবোর্ড ও লিফলেট বিজ্ঞাপনের চেয়ে ফেসবুক বুস্টিং অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে।

ফেসবুক বুস্টিং এর বিশেষ কিছু কারন হল-

  • স্মার্ট মাধ্যম

মানুষ এখন স্মার্ট ফোনের মধ্যে ডুবে থাকে। তারা ফেসবুকে অনেক সময় ব্যয় করে। এমনকি তারা মোবাইলের মাধ্যমে অনলাইনে কেনাকাটাও করে। ফেসবুকে এড দেখিয়ে তাদের কাছে পণ্য বিক্রি করা যায় খুব সহজে।ফেসবুক বুস্টিং এর কয়েকটি সুবিধা নিয়ে আলোচনা করে হলো।

  • কম খরচে

টেলিভিশন, খবরের কাগজ এবং পোস্টার বিজ্ঞাপনের চেয়ে খুব কম খরচে ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দেয়া যায়। মাত্র ১ ডলার দিয়ে ৭০০ থেকে ৩০০০ জন পর্যন্ত টার্গেটেড মানুষকে ২৪ ঘন্ট বা ১ দিনের জন্য ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দেখানো যায়।

  • সহজ ট্র্যাকিং

কত জন আপনার বিজ্ঞাপনটি দেখেছে, কত জন আপনার বিজ্ঞাপনের উপর ক্লিক করেছে, কত জন লাইক-কমেন্ট করেছে এবং কত জন মেসেজ করেছে– তা ফেসবুক বুস্ট চলাকালীন সময়ে জানা যায়।

  • নির্দিষ্ট লোকেশন

ফেসবুক বুস্টিং এর ক্ষেত্রে আপনি ইচ্ছে অনুযায়ী লোকেশন সেট করতে পারবেন। নির্দিষ্ট কোনো এরিয়া, যেকোনো জেলা এবং যেকোনো বিভাগকে লোকেশন হিসেবে সেট করে ফেসবুক এড দিতে পারবেন। এতে করে টার্গেটেড অডিয়েন্স খুঁজে পেতে সুবিধা হয়।

  • জেন্ডার নির্বাচন

ফেসবুক বুস্টিং এ যেমন শুধু পুরুষদের বিজ্ঞাপন দেখানো যায় তেমনি শুধু নারীদেরকেও দেখানো যায়। আবার নারী-পুরুষ উভয়কেই টার্গেট করা যায়৷ যেটি পত্রিকা বা টেলিভিশন বিজ্ঞাপনে সম্ভব হয় না।

  • রুচি অনুযায়ী কাস্টমার টার্গেট

ধরুন, আপনি একটি ফেসবুক পেজ খুলে শাড়ি বিক্রি করছেন। এখন আপনি চাচ্ছেন, যারা অনলাইনে শাড়ি কেনাকাটা করে এবং পছন্দ করে তাদেরকেই বিজ্ঞাপনটি দেখাবেন। সেটা আপনি ফেসবুক বুস্টের মাধ্যমে করতে পারবেন।

ফেসবুক এডটি এমনভাবে সেট করা হবে যেন, যারা অনলাইনে কেনাকাটা করে শুধু তাদের কাছেই পৌঁছাবে ৷ এভাবে আপনি কম খরচে টার্গেটেড কাস্টমারদের বিজ্ঞাপন দেখিয়ে পন্যের বিক্রি বাড়াতে পারবেন।

  • বয়স নির্বাচন

১৮-৬৫ বছরের যে কোনো বয়সের মানুষদের নির্বাচন করে ফেসবুক এড দেখানো যায়। ফলে সকল ধরনের চাহিদা সম্পন্ন পন্য বয়সভেদে ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দেয়া যায়।

ফেসবুক বুস্টিং এর জনপ্রিয় ৪টি Goal

বর্তমানে অনলাইন-অফলাইন ব্যবসাইয়ীরা অনেকে ফেসবুক বুস্ট বা বুস্টিং এর সাথে পরিচিত। শুধু ব্যবসার ক্ষেত্রই নয়, কেউ কেউ ব্যক্তিগত ভাবে ফেসবুক পেজ খুলে বুস্টিং এর মাধ্যমে হাজার হাজার মানুষের কাছে নিজেকে তুলে ধরছে।

বেশির ভাগ মানুষই ব্যবসার প্রসার ঘটাতে এবং নতুন নতুন কাস্টমার পাওয়ার জন্য বুস্টিং করে থাকে। ফেসবুক বুস্টিং এর বিভিন্ন উদ্দেশ্য রয়েছে। বাংলাদেশে জনপ্রিয় ও বহুল ব্যবহৃত ৪টি গোল নিয়ে আলোচনা করা হল-

১. পোস্টে লাইক-কমেন্ট বাড়ানো

এ ধরনের বুস্টকে বলা হয় Engagement Boost। নতুন কোনো অনলাইন ব্যবসায় সম্পর্কে মানুষকে জানাতে বা পোস্টে বেশি লাইক-কমেন্ট পাওয়ার জন্য এধরনের বুস্টিং গোল নির্বাচন করা হয়। এংগেজমেন্ট বুস্টিং এ প্রচুর মানুষকে পোস্টটি দেখানো যায়। ফলে নতুন নতুন কাস্টমার পাওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যাবে।

২. পেজে বেশি বেশি মেসেজ পাওয়া

এ ধরনের বুস্টকে বলা হয় Message Boost। বুস্টিং এর উদ্দেশ্য যদি হয় মানুষজন পণ্য কেনার জন্য ফেসবুক পেজে মেসেজ দিবে, তাহলে এ ধরনের বুস্টিং সেট করতে হবে। মেসেজ বুস্টিং এ, ফেসবুক নির্দিষ্ট মানুষজনকে পোস্টটি দেখায় এবং পেজে মেসেজ এনে দেয়।

এভাবে মেসেজের মাধ্যমে কাস্টমারদের সাথে চ্যাট করার সুযোগ তৈরি হয়। এতে পণ্য বিক্রি করার সুযোগ অনেকগুন বেড়ে যায়।

৩. পেজে লাইক বাড়ানো

এই বুস্টকে বলা হয় Page Promotion। পেজে লাইক বাড়ানোর জন্য এধরনের বুস্টিং করা হয়।

ধরুন, আপনি একটি ফেসবুক পেজ খুললেন ৷ সেখানে কোনো লাইক নেই ৷ প্রথমে আপনি আপনার ফ্রেন্ড লিস্টের পরিচিত বন্ধুদেরকে ইনভাইট পাঠালেন। তারা কয়েকজন পেজে লাইক দিল। আপনার পেজের কিছু লাইক বাড়লো।

কিন্তু আপনি চাচ্ছেন, আপনার ফ্রেন্ড লিস্টের বাইরেও নির্দিষ্ট এলাকার মানুষ আপনার পেজে লাইক দিক। এজন্য আপনাকে ফেসবুকে ডলার দিয়ে Page Promotion করে লাইক বাড়াতে হবে ।

৪. ওয়েবসাইটে বেশি বেশি ট্রাফিক ঢোকানো

ধরুন, আপনার একটি ওয়েবসাইট আছে কিংবা Play Store এ আপনার একটি অ্যাপ আছে। এখন আপনি চাচ্ছেন, ফেসবুক থেকে টার্গেটেড কিছু মানুষকে আপনার ওয়েবসাইটে ঢোকাবেন বা অ্যাপ ডাউনলোড করাবেন।

এক্ষেত্রে আপনাকে এ ধরনের বুস্টিং বাছাই করতে হবে। ফলে আপনি আপনার লক্ষ্য পৌঁছাতে পারবেন ৷

ফেসবুক বুস্টিং এর নিয়ম

ফেসবুক পেজের প্রতিটি পোস্টের নিচে দেখবেন Boost Post নামে একটি বাটন আছে। সেখানে ক্লিক করলে বুস্টিং এর জন্য বিভিন্ন ধরনের বিষয় দেখতে পাবেন। সেগুলো ঠিকঠাক ভাবে সেট করার মাধ্যমে বুস্টিং করা যায়।

বুস্টিং রান করার জন্য সবচেয়ে প্রয়োজনীয় জিনিস হল ডুয়েল কারেন্সির ভিসা কার্ড অথবা আন্তর্জাতিক লেনদেন করা যাবে এরকম কার্ড।

শুধুমাত্র বাংলাদেশী টাকার কোনো মাস্টার কার্ড দিয়ে বুস্ট করা যাবে না। অবশ্যই ডলার পেমেন্ট করা যাবে এরকম মাস্টার/ভিসা কার্ড ব্যবহার করতে হবে।

ফেসবুক বুস্ট করার জন্য কিছু নিয়ম রয়েছে । নিজে নিজে সে নিয়মগুলো পলন করার জন্য নিচের স্টেপগুলো অনুসরণ করুন-

স্টেপ-১ পোস্টের নিচে Boost Post এ ক্লিক করুন

স্টেপ-২ গোল সেট করুন

স্টেপ-৩ মেসেজ বাটন ও ওয়েলকাম মেসেজ (মেসেজ টেমপ্লেট) সেট করুন

স্টেপ-৪  অডিয়েন্স সেট করুন (লোকেশন, বয়স, জেন্ডার ও ডিটেইল টার্গেটিং)

স্টেপ-৫ বাজেট সেট করুন

স্টেপ-৬  দিন/ডিউরেশান  সেট করুন

স্টেপ-৭ পেমেন্ট মেথড এড করুন

স্টেপ-৮ Boost Post Now – বাটনে ক্লিক করুন

যারা নিজে নিজে পারবেন না বা যাদের ডুয়েল কারেন্সি কার্ড নেই তারা বিভিন্ন এজেন্সির সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। এজেন্সী তাদের ভিসা কার্ডটি ব্যবহার করে আপনার পোস্টটি বুস্ট করে দিবে। বিকাশের মাধ্যমে তাদেরকে আপনি পেমেন্ট করে দিতে পারবেন।

তবে অবশ্যই ভাল কোনো এজেন্সির কাছ থেকে বুস্ট রান করাবেন। বর্তমানে কিছু চক্র আছে যারা বুস্ট করার নামে টাকা নিয়ে প্রতারনা করছে। তাদের কাছ থেকে সাবধান থাকবেন।

ফেসবুক বুস্টিং এর খরচ

ফেসবুকে বুস্টিং করার জন্য ফেসবুক কোম্পানিকে ডলারে পরিশোধ করতে হয় । ফেসবুক কখনই বাংলাদেশি টাকা নেয় না। আন্তর্জাতিক ডুয়েল কারেন্সির কার্ড দিয়ে ফেসবুকে ডলার পরিশোধ করে বুস্টিং করতে হয়।

ফেসবুকে মিনিমাম ১ ডলার খরচ করে ১ দিনের জন্য বিজ্ঞাপন দেয়া যায়। এভাবে যে কোনো পেজের মালিক যত ডলার খুশি তত ডলার ফেসবুক বুস্টিং এর ক্ষেত্রে খরচ করতে পারেন। তবে ১ দিনে সর্বোচ্চ ২৫০ ডলার খরচ করতে পারবেন।

বাংলাদেশে যে কোনো ব্যাংক থেকে ১ ডলার কিনতে খরচ পড়বে ১১৮ টাকা । বাংলাদেশ সরকারের নির্দেশ অনুযায়ী ফেসবুক-গুগলে বিজ্ঞাপন দিলে সরকারকে ১৫% হারে ভ্যাট দিতে হবে ।

এই ভ্যাট, ডলার খরচ করার সাথে সাথে ব্যাংক কেটে নিবে। অর্থাৎ ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দিতে গেলে বা বুস্টিং করলে ভ্যাটসহ ১ ডলার কিনতে খরচ পড়বে ১১৮+১৫% = ১৩৫.৭ টাকা ।

অতএব , ফেসবুক বুস্টিং এর খরচ প্রতি ডলার ১৩৬ টাকা । নিজে নিজে বুস্টিং করলে এই খরচ পড়বে।

কিন্তু আপনি যদি কোনো এজেন্সি দিয়ে বুস্ট করান তাহলে এজেন্সিকে প্রতি ডলারে ১০ টাকা থেকে ২০ টাকা পর্যন্ত সার্ভিস চার্জ দিতে হবে ।

মানে এজেন্সিভেদে ১ ডলার বুস্টিং করতে ১৪৫-১৫৬ টাকা পর্যন্ত খরচ হতে পারে ।

শেষ কথা

আধুনিক ও স্মার্ট ফোনের এই যুগে বিজ্ঞাপনের সবচেয়ে সুন্দর, উপযোগী ও কার্যকারী মাধ্যম হল ফেসবুক বুস্টিং।

নিয়মিত ফেসবুক বুস্ট যেমন আপনার ব্যবসায়ের কাস্টমারের রুচি, ব্যবহার ও মতামত জানতে সহায়তা করবে, তেমনি আপনার ব্যবসায়কে খুব সহজে বহু মানুষের কাছে পৌছে দিবে।

ফলে, আপনার ব্যবসার বিক্রয় বেড়ে একটি টেকসই উন্নয়ন ঘটবে।

সর্বোপরি, খুব দ্রুত ব্যবসার প্রসার ঘটানো, নতুন নতুন কাস্টমার পাওয়া,তাদের সাথে চ্যাট করা, তাদেরকে আপনার ব্যবসার নতুন নতুন কালেকশন দেখানো এবং বিক্রি বাড়িয়ে লাভবান হওয়ার জন্য ফেসবুক বুস্টিং এর গুরুত্ব অপরিসীম। তাই ফেসবুক বুস্টিং এর সকল বিষয় ভালোভাবে জেনে বুস্টিং করা উচিত।